শিরোনাম: আলোচনায় কেএনএফ প্রধানের স্ত্রীঃ করা হলো স্ট্যান্ড রিলিজ সাঙ্গু নদীতে ফুল ভাসিয়ে শুরু হলো চাকমা-তঞ্চঙ্গ্যাদের বিঝু-বিষু উৎসব যথাযোগ্য মর্যাদা ও উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পবিত্র ঈদুল ফিতরের ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত বান্দরবানে রুমা-থানচি ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় ৫২ জন কারাগারে স্মার্ট বান্দরবান-স্মার্ট ক্রীড়াঙ্গনঃ ঈদুল ফিতর ও মাহা সাংগ্রাই পোয়েঃ উপলক্ষে খেলোয়াড়রা পেলো শুভেচ্ছা উপহার বান্দরবানে জেলা প্রশাসনের কর্মচারীরা পেলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঈদ উপহার থানচিতে ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার আরও ৪ রুমায় সোনালী ব্যাংকের সহকারী ক্যাশিয়ারসহ দুই কেএনএফ সন্ত্রাসী আটক

মনোনয়ন প্রত্যাশীদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের ব্যাপারে সতর্ক করলেন প্রধানমন্ত্রী


প্রকাশের সময় :২৪ জুন, ২০১৮ ১:৫৯ : পূর্বাহ্ণ 611 Views

সিএইচটি টাইমস নিউজ ডেস্কঃ-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী নির্বাচনে দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন,সংগঠন এবং পরস্পরের বিরুদ্ধে অপপ্রচারকারীরা দলীয় মনোনয়ন লাভে অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।
দলের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এবং সংসদ সদস্যদের বিরুদ্ধে কাদা ছোঁড়াছুড়ি বন্ধের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী দলের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, বরং দলের উন্নয়ন কর্মকান্ডগুলো ভোটারদের কাছে তুলে ধরতে হবে এবং তাদের বোঝাতে হবে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় এলে ২০০১ সালের মতই কি ভয়াবহ ব্যাপার ঘটতে পারে।
তিনি বলেন, ‘যিনি আমার দলের বিরুদ্ধে বদনাম করবেন সে কি এটা বোঝেন না, এতে তার ভোটও নষ্ট হবে।’ সে তাহলে কোনমুখে ভোট চাইতে যাবে, প্রশ্ন তোলেন প্রধানমন্ত্রী।শেখ হাসিনা গতকাল (২৩জুন) দুপুরে দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিশেষ বর্ধিত সভায় সভাপতির বক্তৃতায় একথা বলেন।প্রধানমন্ত্রী আগামীর জাতীয় নির্বাচনকে অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং আখ্যায়িত করে বলেন, ‘সামনে আমাদের নির্বাচন।সবসময় মনে রাখতে হবে, এটা আমাদের একটানা তৃতীয় নির্বাচন।আর নির্বাচন মানেই সেটা চ্যালেঞ্জিং হবে এবং এই নির্বাচনে সকলকে এক হয়ে কাজ করতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘সময় কিন্তু আর বেশি নাই কেউ দলীয় মনোনয়ন পাবেন কি পাবেন না সেটা নির্ভর করে এলাকায় কতটুকু জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পেরেছেন আর দলের নেতা-কর্মীদের কিভাবে মূল্যায়ন করছেন তার ওপর।’ প্রধানমন্ত্রী দলের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন,আমি আপনাদের কাছে এটুকুই চাইবো আমরা যে কাজগুলো করেছি সেই কথাগুলো জনগণের কাছে আপনাদের পৌঁছে দিতে হবে।আমাদের দলের পক্ষ থেকেই এই কথাগুলো মানুষের কাছে নিয়ে যেতে হবে যে,আমরা আপনাদের জন্য এই কাজ করেছি এবং এই কাজগুলো আগামীতে করবো।তিনি বলেন,২০০৮ এর নির্বাচনের আগে আমরা যে ঘোষণা দিয়েছিলাম তার চেয়ে অনেক দূর আমরা এগিয়ে গিয়েছি।২০১৪ এর নির্বাচনী ইশতেহার থেকেও আমরা এগিয়ে গিয়েছি।পরের বারে আমরা আরো অগ্রগতি করতে সক্ষম হব।কাজেই আওয়ামী লীগ যে কথা দেয়,সে কথা রাখে।সেকথাটাই মনে রাখতে হবে।আর জনগণকে সেকথা বলতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী দলের মধ্যে মতভেদ সৃষ্টিকারীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আমি লক্ষ্য করেছি কেউ কেউ স্বপ্রণোদিত প্রার্থী হয়ে বিএনপি কি সন্ত্রাস করলো, লুটপাট,দুর্নীতি করলো,জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করলো সেটা বলে না।অথচ তাদের বক্তব্য এসে যায় আওয়ামী লীগ এমপির বিরুদ্ধে,সংগঠনের বিরুদ্ধে।’ তিনি তাঁর ব্যক্তিগত সকল কিছু বাদ দিয়ে কেবল দলের জন্য, দেশের জন্য দিনরাত পরিশ্রম করেন,উন্নয়নের কাজ করেন উল্লেখ করে বলেন, ‘আমি একটা ঘোষণা দিতে চাই-কেউ যদি আমার দলের উন্নয়নের কথাগুলো না বলে কোথায় কার কি দোষ আছে সেগুলো খুঁজে বের করে জনগণের কাছে গিয়ে বলেন তারা আওয়ামী লীগের নমিনেশন পাবেন না। এটা পরিষ্কার।’ এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন,যদি কেউ ৫ বছর,৫ বছর ১০ বছর সরকারে থাকার পর দলের বিরুদ্ধে বদনাম করে তাহলে জনগণতো তাকেও ভোট দেবে না।এটা হলো বাস্তবকথা কাজেই একথাটা সবাইকে মনে রাখতে হবে।এটা ডিজিটাল বাংলাদেশ এবং আজকাল সব কথাই রেকর্ড হয় এবং চাইলে মোবাইল মারফত সেগুলো তিনি শুনতেও পারেন বলেন প্রধানমন্ত্রী।এ সময় তাঁর মোবাইল ফোনে দিনে তিন-চারশো ক্ষুদে বার্তা আসে এবং সময় পেলেই তিনি প্রতিটি বার্তা পড়েন এবং সংশিষ্ট সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেন বলেও তিনি জানান।প্রার্থী হবার অধিকার সকলের আছে কিন্তু প্রার্থী হতে গিয়ে দলের বদনাম করা তিনি সহ্য করবেন না বলেন প্রধানমন্ত্রী।প্রধানমন্ত্রী এ সময় দলীয় সংসদ সদস্যদের দলের ত্যাগী কর্মীদের মূল্যায়নের আহ্বান জানান।তিনি বলেন, ‘আমাদের যারা সংসদ সদস্য আছেন তাদেরকেও আমি বলবো একটা কথা মনে রাখবেন-জনগণ কিন্তু খুব হিসেবি কেউ দুর্নীতি করলে জনগণ কিন্তু সেটা ঠিকই মাথায় রাখবে।সেটা কিন্তু তারা ভুলে যায় না।কাজ করতে গিয়ে টাকা নিলে পরে ভোট চাইতে গেলে তারা বলবে টাকা দিয়ে কাজ নিয়েছি ভোট দেব কেন?’
প্রধানমন্ত্রী জনগণের সচেতনতার কথা উল্লেখ করে আরো বলেন,জনগণের এখন কিন্তু চক্ষু খুলে গেছে। এখন ডিজিটাল যুগ।তারা এখন বিশ্বকে জানতে পারছে।প্রধানমন্ত্রী এ সময় ঐতিহাসিক ৬ দফা ঘোষণার পর বঙ্গবন্ধু জেলে থাকাকালীন আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতা-কর্মীদের সেটাকে ৮ দফায় নিয়ে যাবার প্রচেষ্টার কথা স্মরণ করে বলেন, আওয়ামী লীগের ওপর দিয়ে অনেক ঝড়-ঝাপটা গেছে, আমার ছোট বেলা থেকেই দেখা তিনি (বঙ্গবন্ধু) জেলের ভেতরে থাকলে আওয়ামী লীগের কি চেহারা আর বাইরে থাকলে কি চেহারা হয়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন,কাজেই দুঃসময়ে যারা মাঠে থাকে, দুঃসময়ে দলের ভার বয়ে যারা রাখে,সেই দুঃসময়ের কর্মীরা যেন অবহেলিত না হয়।সেটা মনে রাখতে হবে।দল ক্ষমতায় থাকলে সুবিধাভোগী শ্রেনী অন্য দল থেকে দলে এসে ভিড়লেও অসময়ে তাদের পাওয়া যায় না উল্লেখ করে গ্রুপিং এর দল ভারি করার জন্য এদের দলে ভেড়ানো থেকে বিরত থাকার জন্যও তিনি নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান।বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসী,নির্যাতনকারী, লুটপাটকারীরা মামলা থেকে বাঁচার ভয়ে অনেকেই আওয়ামী লীগে ভিড়তে চাইতে পারে উল্লেখ করে তাদের সম্পর্কেও দলের সকলকে সতর্ক থাকার জন্য নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।(বাসস)

ট্যাগ :

আরো সংবাদ

ফেইসবুকে আমরা



আর্কাইভ
April 2024
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  
আলোচিত খবর

error: কি ব্যাপার মামা !!