আজকে ২৬ এপ্রিল, ২০১৯ | | সময়ঃ-০২:৪২ অপরাহ্ন    

Home » বান্দরবান সদর

বান্দরবান সদর

উজি-ভিতর পাড়ায় সার্বজনিন জলোৎসব ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

বান্দরবান অফিসঃ- পাহাড়ে শেষ হয়েছে তিন দিনব্যাপী বৈসাবি উৎসব।বান্দরবান সহ তিন পার্বত্য জেলায় উৎসবমুখর পরিবেশে বর্ণিল আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে বর্ষবরণ উৎসব।এখন পাড়ায় পাড়ায় চলছে মারমা সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী জলকেলি উৎসব।আজ সোমবার (১৮ এপ্রিল) দুপুর তিনটায় সার্বজনিন জলোৎসব ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে বান্দরবান সদর উপজেলার সদর ইউনিয়ন অন্তর্গত উজি ভিতর পাড়ায়।স্থানীয় মারমা তরুণ-তরুণীদের উদ্যোগে উজি ভিতর পাড়া উৎসব উদযাপন কমিটি এই উৎসবের আয়োজন করে।উঃ গংবু মার্মা’র সভাপতিত্বে আয়োজিত উৎসব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল কু্দ্দুছ।এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী,৪নং সুয়ালক ইউনিয়ন পরিষদ এর প্যানেল চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন,বান্দরবান সদর ইউনিয়ন এর ৪.৫.৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য পাইম্রাউ মার্মা প্রমুখ সহ পাড়ার শতশত নারী পুরুষ।উৎসবের উদ্বোধন করতে গিয়ে প্রধান অতিথি বান্দরবান সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুছ বলেন, সকলকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।মাহা সাংগ্রাই ২০১৯ এখানে উপস্থিত থাকা সকলের জীবনে মঙ্গল বয়ে আনুক এই প্রার্থনা করি।উজি ভিতর পাড়া বাসীর প্রতি আমি কৃতজ্ঞ কারণ এই পাড়াবাসী আমাকে ব্যালটের মাধ্যমে সমগ্র বান্দরবান জেলাজুড়ে যে সম্মান এর আসনে বসিয়েছেন তা কোনও ভাবে টাকা পয়সা দিয়ে কেনা যাবেনা।এই পাড়ার প্রতিটি সদস্যকে আমি আমার পরিবারের সদস্য মনে করে থাকি।এই পাড়ার প্রতিটি সদস্যের জন্য আমার ঘরের দরজা দিন-রাত ২৪ ঘন্টা খোলা থাকবে।অতীতের ন্যায় যেকোনও সময় যেকোনও বিপদে আপদে আমাকে আপনাদের পরিবারের সদস্য মনে করে স্বরণ করবেন,আমি সাড়া দিবো।এসময় তিনি আরও বলেন,আমি যতদিন বেঁচে থাকি উজি ভিতর পাড়ার এই দরিদ্র মানুষগুলোর জন্য যেকোনও সময়-যেকোনও প্রয়োজনে সাহায্য সহযোগিতা করে যাবো কথা দিচ্ছি।এসময় অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি সদর উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী বলেন,মাহা সংগ্রাই এর মৈত্রীময় শুভেচ্ছা জানাই আমার প্রানের উজি ভিতর পাড়া বাসী কে।ধন্যবাদ জানাই স্থানীয় তরুণ তরুণীর উদ্যোগে আয়োজিত এমন একটি মহৎ অনুষ্ঠানে আমাকে অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানানোয়।নতুন বছরে আজকের এই দিনে একটি কথাই বলবো,পুরনো সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে এমন একটি সমাজ গঠন করতে চাই যে সমাজে কোনও হিংসা বিদ্বেষ থাকবেনা।

সুয়ালক মাঝের পাড়ায় মডেল পাড়া কেন্দ্রের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন

নিউজ ডেস্কঃ- পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় টেকসই সামাজিক সেবা প্রদান প্রকল্পের আওতায় বান্দরবানের সুয়ালক মাঝের পাড়ায় মডেল পাড়া কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করা হয়েছে।শনিবার (২৩ মার্চ) সকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের বাস্তবায়নে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ইউনিসেফের অর্থায়নে ৩০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ১তলা বিশিষ্ট সুয়ালক মাঝের পাড়ায় মডেল পাড়া কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।এসময় পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা, জেলা প্রশাসক মো: দাউদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকির হোসেন মজুমদার, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান মো: শাহীনুল ইসলাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের বান্দরবান ইউনিটের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বিন মো: ইয়াছির আরাফাত, প্রকল্প পরিচালক ড. প্রকাশ কান্তি চৌধুরী, প্রকল্প ব্যবস্থাপক মো: জানে আলম, প্রোগ্রাম অফিসার থুইসাচিং মারমাসহ সুয়ালক ইউনিয়নের বিভিন্ন পাড়াবাসী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্র্ড জানান, পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় টেকসই সামাজিক সেবা প্রদান প্রকল্পের আওতায় তিন পার্বত্য জেলার ২৫ টি উপজেলায় ১টি করে মোট ২৫ টি মডেল পাড়াকেন্দ্র নির্মাণ করা হবে এবং এই পাড়াকেন্দ্র নির্মাণ করা হলে পাড়ার উন্নয়নের পাশাপাশি শিক্ষা স্বাস্থ্য ও পরিবেশের ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হবে।সুয়ালক মাঝের পাড়ায় মডেল পাড়া কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন শেষে সংক্ষিপ্ত এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।এসময় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকির হোসেন মজুমদার বলেন, কোন সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজকে পার্বত্য এলাকায় বসবাস করতে দেয়া হবে না। সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজ দেশের শত্রু। এসময় তিনি আরো বলেন, সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজের কারণে অনেক সময় উন্নয়ন কাজ বাধাঁগ্রস্থ হয়, তাই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আমাদের সকলকে একসাথে অবস্থান করতে হবে। সন্ত্রাসীদের কোন তথ্য থাকলে পুলিশ বাহিনীকে সংবাদ দিয়ে এলাকায় শান্তি শৃংঙ্খলার উন্নয়নে প্রত্যেক জনসাধারণকে অগ্রনী ভুমিকা রাখতে হবে।এসময় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় টেকসই সামাজিক সেবা প্রদান প্রকল্পের আওতায় বান্দরবানের মডেল পাড়া কেন্দ্র নির্মাণ একটি ভালো উদ্যোগ, তবে এ ব্যাপারে প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ইউনিসেফের আরো দায়িত্বশীল হওয়া দরকার। শুধু পাড়াকেন্দ্র করলে হবে না স্থান নির্বাচন ও পাড়াকেন্দ্র পরিচালনায় আরো বেশি দায়িত্ব নিতে হবে সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা সকলকে।এসময় পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি আরো বলেন, ইতিপূর্বে অনেক পাড়াকেন্দ্র করা হয়েছে , কিন্তুু অনেক পাড়াকেন্দ্র বর্তমানে অচলাবস্থায় রয়েছে সেগুলোকে সচল করা প্রয়োজন। এসময় মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি উপস্থিত পাড়াবাসীদের মডেল পাড়া কেন্দ্রের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা গ্রহণের জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ জানান এবং সরকারের গৃহীত সকল উন্নয়ন কার্যক্রমে অংশ নিয়ে সোনার বাংলাদেশ গড়তে সকলকে আহবান জানান।

বান্দরবানে ৬টিতে আওয়ামীলীগ,১টি স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত

বান্দরবান অফিসঃ- বান্দরবানের উপজেলা পরিষদ নির্বাচেন ৬টিতে আওয়ামীলীগ, ১টি স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত । সদর উপজেলায় আওয়ামীলীগের প্রার্থী একেএম জাহাঙ্গীর, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় আওয়ামীলীগের প্রার্থী মো: শফিউল্লাহ , রোয়াংছড়ি, উপজেলায় আওয়ামীলীগের প্রার্থী চহাইমং মারমা,থানচি আওয়ামীলীগের প্রার্থী থোয়াই হ্লা মং, রুমা উপজেলায় আওয়ামীলীগের প্রার্থী উহ্লাচিং মারমা,আলীকদম উপজেলায় স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম ও লামা উপজেলায় আওয়ামীলীগের প্রার্থী মোস্তফা জামাল বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছে।

উপজেলা নির্বাচনে বান্দরবানে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ

বান্দরবান অফিসঃ- দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বান্দরবানের ৭টি উপজেলার চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল (২৮ ফেব্রুয়ারী) বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে বান্দরবান জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেন দায়িত্বপ্রাপ্ত জেলা রিটানিং কর্মকর্তা মো:আবুল কালাম। এসময় উপজেলার প্রার্থী ও প্রার্থীদের পক্ষে সমর্থকরা তাদের পক্ষে প্রতীক গ্রহণ করেন। প্রতীক বরাদ্দের সময় সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো:শাহাদাৎ হোসেনসহ বিভিন্ন উপজেলার প্রার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

২য় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বান্দরবানের ৭টি উপজেলার মধ্যে ৭টিতে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ১৮ই মার্চ। এবারের উপজেলা নির্বাচনে ৬টি চেয়ারম্যান পদে ১৪ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৩ জন অংশ নিচ্ছে, তবে লামা উপজেলায় এখনো প্রার্থীতা প্রত্যাহার ও প্রতীক বরাদ্ধ দেয় হয়নি।

বান্দরবান সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো:শাহাদাৎ হোসেন জানান,বান্দরবানের সাতটি উপজেলা বান্দরবান সদর,লামা,আলীকদম,থানছি,রুমা,নাইক্ষংছড়ি,রোয়াংছড়িতে উপজেলা নির্বাচন আগামী ১৮ই মার্চ অনুষ্ঠিত হবে। তবে আওয়ামীলীগের এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে লামা উপজেলায় প্রার্থীতা প্রত্যাহার ও প্রতীক বরাদ্ধ অন্যান্য উপজেলা থেকে এক দুইদিন বেশি সময় লেগে যাবে।

তিনি আরো জানান, এবারের উপজেলা নির্বাচনে বান্দরবান সদর,আলীকদম,রোয়াংছড়ি ও থানছি উপজেলার রিটানিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো:আবুল কালাম এবং রুমা,লামা ও নাইক্ষংছড়ি উপজেলার রিটানিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো:রেজাউল করিম।

সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো:শাহাদাৎ হোসেন আরো জানান, বান্দরবানে এবার ২লক্ষ ৪৬ হাজার ১শত ৮৪জন ভোটার উপজেলা নির্বাচনে ভোট কার্যক্রমে অংশ নেবে।

সুয়ালক উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা

বান্দরবান অফিসঃ-বান্দরবান সদর উপজেলার স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সুয়ালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৯ শিক্ষাবর্ষ এর এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা ও নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।আজ বুধবার (৩০ জুন) সুয়ালক উচ্চবিদ্যালয় এর একাডেমি ভবনে এই সংবর্ধনা ও নবীন শিক্ষার্থী বরণ অনুষ্ঠিত হয়।সুয়ালক উচ্চবিদ্যালয় এর প্রধান শিক্ষক নুরুল কবীরের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয় এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বান্দরবান সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুছ।এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ৪নং সুয়ালক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান উ ক্যা নু মার্মা,প্যানেল চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন,১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আব্দুস সবুর মেম্বার প্রমুখ।বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক এম.এ.লতিফ সিকদার এর সঞ্চালনা এসময় অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয় এর সিনিয়র শিক্ষক পাঁচকডি দাশ,সিনিয়র শিক্ষক দীপু কুমার বড়ুয়া,সিনিয়র শিক্ষক দেবমিত্র বড়ুয়া,সাবেক শিক্ষার্থী ফারুক খান তুহিন।এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন শিক্ষিকা নারগিস আক্তার, সনৎ কুমার বড়ুয়া, শামীম আকবর, সন্তোষ কুমার দত্ত, প্রবণ কান্তি দেব, কেয়া আক্তার ও মো: ইসমাঈল।বিদায়ী শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন তাসপিয়া সিকদার তুসি এবং মানপত্র পাঠ করেন দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী তাসলিমা ইসলাম।এসময় অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আব্দুল কুদ্দুছ চেয়ারম্যান বিদায়ী শিক্ষার্থীদের পাঠে গভীর মনোযোগী হয়ে ভাল ফলাফল অর্জনের মাধ্যমে নিজেদের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলে সুখী সমৃদ্ধ দেশ গঠনে অংশগ্রহণের জন্য আহ্বান জানান।অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, সার্টিফিকেট অর্জন মানে শিক্ষিত হওয়া নয়, উন্নত চরিত্রের প্রতিফলনই শিক্ষিত হওয়ার প্রমাণ। প্রতিটি শিক্ষার্থীকে চরিত্রবান হতে হবে।বক্তারা আরো বলেন, সুয়ালক উচ্চ বিদ্যালয় অতীতের ধারাবাহিকতায় এবারও ভাল ফলাফল করবে। প্রতিটি শিক্ষার্থীকে সেভাবে প্রস্তুত করা হয়েছে।পরে মোনাজাতের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীদের জন্য দোয়া করেন মাওলানা মোসলেহ উদ্দিন। পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার উপকরণও বিতরণ করা হয়।উল্লেখ্য,এ বছর তিনটি বিভাগ থেকে ৯৫জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবেন।

 

সঞ্চালন লাইন মেরামতে হঠাৎ বিদ্যুৎ, শ্রমিক নিহত

নিউজ ডেস্কঃ-বান্দরবান শহরের কাছে লাল ব্রিজ এলাকায় বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের মেরামত কাজ করার সময় হঠাৎ বিদ্যুৎ চালু হলে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মো. অরাবি ইসলাম (২৩) নামে এক শ্রমিক মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে। খবর পেয়ে দমকল বাহিনীর সদস্য ও পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

বান্দরবান বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী চিংলা মং মারমা জানান, চট্টগ্রামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের আওতায় জেলা শহর থেকে বন প্রপাত এলাকা পর্যন্ত সঞ্চালন লাইনে নতুন তার লাগাচ্ছিলেন ওই শ্রমিকসহ অপর ৩ শ্রমিক। কিন্তু হঠাৎ সঞ্চালন লাইনে বিদ্যুৎ চালু হলে ঘটনাস্থলেই পুড়ে মারা যায় মো. আরাবি।

নিহত শ্রমিক আরাবির বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার দহল বাড়ি গ্রামে। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে কর্মকর্তরা জানিয়েছেন।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মো. শফিউল আলম সিদ্দিকি জানান, এলটি লাইন বন্ধ করেই কাজ করছিল শ্রমিকরা। কিন্তু কেন হঠাৎ করে লাইনে বিদ্যুৎ চালু হলো তা বোঝা যাচ্ছে না। হয়ত কোনোভাবে বন্ধ লাইনের সাথে বিদ্যুতের সংযোগ হয়ে গেছে।

বিষয়টি নিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের প্রকৌশলীদের সাথে আলোচনা করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

গত মাসেও শহরের নতুন ব্রিজ এলাকায় সঞ্চালন লাইনে কাজ করতে গিয়ে এক শ্রমিক নিহত হন।

বান্দরবানে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর বিষয়ক সেমিনার

নিউজ ডেস্কঃ-“বিজ্ঞান শিক্ষাই বিজ্ঞানমনস্ক জাতি গঠনের নিয়ামক শক্তি ’’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বান্দরবানে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ ২৩ জানুয়ারী বুধবার দুপুরে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের তত্ববধানে সদর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এই সেমিনারের আয়াজন করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: নোমান হোসেনের সভাপতিত্বে, অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদ্দুল কুদ্দুছ । আরো অতিথি উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান সরকারী কলেজের প্রভাষক সুজন কান্তি বড়–ুয়া সহ আরো অনেকে ।

অনুষ্ঠানে অতিথিরা বলেন, সকল শিক্ষার্থীদেরকে বিজ্ঞান মুখি হতে হবে তবেই দেশ বিজ্ঞান প্রযুক্তি উন্নতির দিকে এগিয়ে যাবে, সমৃদ্ধ হবে বাংলাদেশের সকল প্রযুক্তি। তাই সকল শিক্ষকমন্ডলীকে বিজ্ঞান ভিত্তিক কিছু বইয়ের উপর জোর দিতে হবে। শিক্ষার্থীরা যাতে বিজ্ঞান বিষয়ে বিভিন্ন ধারনা পায়, সেদিকে খেয়াল রেখে বিজ্ঞান বিষয়ে উৎসাহ প্রদান করতে হবে। অতিথিরা সকলকে বিজ্ঞান প্রযুক্তির দিকে ধাবিত হওয়ার আহব্বান জানান ।

বান্দরবান উপজেলা নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী ‘জামাল উদ্দিন চৌধুরী’

নিউজ ডেস্কঃ- বান্দরবান উপজেলা নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী।সূত্রে জানা যায়, এবারে নির্বাচন হবে দলীয় প্রতীকে। ইতিমধ্যে মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতারা লবিং শুরু করেছেন।বর্তমান সদর উপজেলার ভাইস-চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী, গত উপজেলা নির্বাচনে দলিয় মনোনয়নে বান্দরবান জেলার সাত উপজেলার মধ্যে বিপুল ভোটে নির্বাচিত একমাত্র উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান।এবারও জামাল উদ্দিন চৌধুরী নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।তিনি গত উপজেলা নির্বাচনে,ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে বান্দরবান সদর উপজেলার ৫ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভায় সরকার এর প্রদত্ত ব্যাপক উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেন।তিনি বান্দরবান পৌর যুবলীগ সভাপতি এবং বান্দরবান জেলা যুবলীগ-সাধারণ সম্পাদক হিসাবে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। সুখ-দুঃখে জনগণের পাশে থাকায় উপজেলায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন।দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, উন্নয়নের জন্য উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকেও বেছে নিতে চাই। সেদিক থেকে জামাল উদ্দিন চৌধুরী কথা উল্লেখ করেন ওই নেতাকর্মীরা।সাধারণ জনগণ জানান, বর্তমান উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী জনগণের সুখ-দুঃখে সবসময় পাশে আছেন। তিনি উপজেলা পরিষদে আওয়ামীলীগ দলীয় প্রতীক নৌকা নিয়ে নির্বাচন করলে জনগণ তাকে ভোট দিবে ।উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমি নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করছি, এলাকাবাসী ব্যাপক সাড়া দিচ্ছে। দলের নীতিনির্ধারকরা যদি আমাকে দলীয় মনোনয়ন দেন তাহলে বিপুল ভোটে আমি জয়লাভ করবো।

রোটারি ক্লাব অব বান্দরবানের আয়োজনে শীতবস্ত্র বিতরণ

বান্দরবানঃ-দুর্গম পার্বত্য জেলা বান্দরবানের শীতার্থ মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। গতকা (১৪ জানুয়ারী) সোমবার সকালে বান্দরবান সদরের বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে রোটারি ক্লাব অব বান্দরবানের আয়োজনে শীতার্থ মানুষের মধ্যে এই শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।এসময় জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন অসহায় ও দরিদ্র জনসাধারণ উপস্থিত থেকে এই শীত সামগ্রী গ্রহণ করে।অনুষ্ঠানে রোটারি ক্লাব অব বান্দরবানের প্রেসিডেন্ট রোটারিয়ান কাজল কান্তি দাশ, সেক্রেটারী রোটারিয়ান মোজাম্মেল হক লিটন,ভাইস প্রেসিডেন্ট রোটারিয়ান অমল কান্তি দাশ, রোটারিয়ান মাহাবুুবুর রহমান, রোটারিয়ান অলক ধর, রোটারিয়ান মো:ফারুক, রোটারিয়ান মংক্যচিং চৌধুরী, রোটারিয়ান মো:ইসমাইল, রোটারিয়ান আনিসুর রহমান সুজন, রোটারিয়ান মো:শফিকুর রহমান বাবুলসহ ক্লাবের বিভিন্ন সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।এসময় জেলা ও বিভিন্ন উপজেলার গরীব ও অসহায় ৩০০ শত ব্যক্তির মধ্যে এই শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়। আয়োজকেরা জানান, দেশের অন্যান্য জেলার মত বান্দরবানে ও প্রচুর শীত অনুভুত হয়,আর তাই প্রতিবছরই শীতার্থদের পাশে দাড়ায় রোটারি ক্লাব অব বান্দরবান।

বান্দরবানের প্রকাশিত হলো বম নৃ-গোষ্ঠীর ভাষায় প্রথম ব্যাকরণ বই

নিউজ ডেস্কঃ-বান্দরবানে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বম ভাষায় প্রথম ব্যাকরণের বই প্রকাশিত হয়েছে। ১১ জানুয়ারি শুক্রবার সকালে জেলা শহরের কালাঘাটায় বম ছাত্রাবাস মিলনায়তনে ‘বেসিক বম গ্রামার’ নামক বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন জেলা পরিষদের সদস্য জুয়েল বম। বইটি রচনা করেছেন বম ভাষার লেখক ভাননুনসিয়াম বম।মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে ভাননুনসিয়াম জানান, বম জনগোষ্ঠীর জনসংখ্যা মাত্র ১১ হাজারের কাছাকাছি। ভাষার মাধ্যমেই জাতিসত্ত্বার পরিচয় টিকে থাকে। কিন্তু এতোদিন বম ভাষার শুদ্ধ চর্চার জন্যে কোনো ব্যাকরণ ছিলোনা। তাই ভাষাও বিকৃত হয়ে যাচ্ছিলো। এসব বিষয় মাথায় রেখেই ব্যাকরণ বই প্রকাশের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।অনুষ্ঠানটিতে সভাপতিত্ব করেন প্রেসবেটারিয়ান চার্চের পরিচালক লালজারলম বম। অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদের সদস্য সিংইয়ং ম্রো, লেখক পাকসিম বিতলুং, থিমকুব বম, প্রথম আলোর বান্দরবান প্রতিনিধি বুদ্ধজ্যোতি চাকমা, মানবাধিকারকর্মী অং চ মং, খুমি নৃ-গোষ্ঠীর নেতা লেলুং খুমিসহ জেলার বিশিষ্টজনেরা।বইটি প্রকাশ করেছে প্রেসবেটারিয়ান চার্চ অব বাংলাদেশ।