বিষয় :

লামায় অবৈধ পাথরের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযান


ডেস্ক রিপোর্ট প্রকাশের সময় :১৩ জুন, ২০১৯ ১:৩২ : পূর্বাহ্ণ

পরিবেশ ধ্বংস করে, পাহাড় ও ছড়া খুঁড়ে লামায় উত্তোলনকৃত অবৈধ পাথরের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে উপজেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর বান্দরবান।গতকাল বুধবার (১২ জুন) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ইয়াংছা,কাঠাঁলছড়া ও বনপুর এলাকায় অবৈধ পাথরের বিরুদ্ধে এই সাঁড়াশি অভিযান পরিচালিত হয়।

অভিযানে অংশ নেন, লামা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইশরাত সিদ্দিকা, পরিবেশ অধিদপ্তর বান্দরবানের সহকারী পরিচালক একেএম সামিউল আলম কুরসী, পরিবেশ অধিদপ্তর বান্দরবানের ইন্সেপেক্টর নাজনীন সুলতানা নীপা ও লামা থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. আশরাফ সহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যারা।

এছাড়া তার আগের দিন মঙ্গলবার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ইয়াংছা, কাঠাঁলছড়া ও বনপুর এলাকায় অবৈধ মজুদকৃত ৫ লক্ষাধিক পাথরের বিশাল স্টক পরিদর্শন করেন লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাত রুমি।

অভিযানের বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর বান্দরবানের সহকারী পরিচালক একেএম সামিউল আলম কুরসী বলেন, শীঘ্রই লামার ইয়াংছা ও বনপুর অংশে অবৈধ পাথর উত্তোলনের সাথে জড়িত ব্যবসায়ীদের সাধারণ মামলার মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হবে। বুধবার সরজমিনে আমরা পাথর উত্তোলনের চিত্র, পরিবেশের ক্ষতির মাত্রা ও অবৈধ মজুদকৃত পাথরের স্তুপ পরিদর্শন করেছি। স্থানীয়দের দেয়া তথ্যমতে প্রতীয়মান হয় যে, চলতি মৌসুমে এইসব অবৈধ পাথর ব্যবসায়ীরা কমপক্ষে ১০ থেকে ১২ লক্ষ ঘনফুট পাথর পাচার করেছে। ইয়াংছা ও বনপুর অংশে বর্তমানে প্রায় ৫ লক্ষাধিক ঘনফুট পাথর মজুদ রয়েছে। অবৈধ পাথর উত্তোলন ও পাচারকারীদের বিরুদ্ধে পরিবেশ আইনে নিয়মিত মামলার প্রস্তুতি চলছে।

লামা উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইশরাত সিদ্দিকা বলেন, সংশ্লিষ্ট বিভাগ পরিবেশের জন্য ক্ষতিকারক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাত রুমি বলেন, অবৈধ মজুদকৃত পাথর যেন রাতার আধাঁরে পাচার হয়ে না যায় সে ব্যাপারে আমরা সজাগ রয়েছি।

ট্যাগ :

আরো সংবাদ



আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  
আলোচিত খবর
error: কি ব্যাপার মামা !!