এই মাত্র পাওয়া :

শিরোনাম: স্যোশাল মিডিয়ায় ঝড়! বান্দরবানে ভয়ংকর কিলিং মিশনে নেমেছে সন্তু লারমা ! বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে নিউইয়র্কে ১০ দিনব্যাপী ভার্চুয়াল বইমেলা প্রধানমন্ত্রী ১ কোটি গাছের চারা রোপণ কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক অঙ্গনে শেখ হাসিনার যত স্বীকৃতি পাটকল চালু হলে অভিজ্ঞরা নতুন করে চাকরি পাবে: প্রধানমন্ত্রী বান্দরবানে দূর্গম এলাকায় সেনাবাহিনীর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যহত বান্দরবানের রোয়াংছড়িতে সেনা টহলকে লক্ষ্য করে সন্ত্রাসীদের গুলি,এক নারী নিহত,শিশু আহত বান্দরবানে পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এর সুস্থতা কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

মা তার সন্তানের জন্য যা করে প্রধানমন্ত্রী তা-ই করেছেন : কাদের


সিএইচটি টাইমস ডেস্ক রিপোর্ট প্রকাশের সময় :১৫ মে, ২০১৯ ৯:৩৪ : অপরাহ্ণ

মা তার সন্তানের জন্য যা করে প্রধানমন্ত্রী তা-ই করেছেন : কাদের

সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দুই মাস ১০ দিন পর দেশে ফিরেছেন।

বুধবার (১৫ মে) বিকেল ৫টা ৩০ মিনিটের দিকে হযরত শাহ জালাল আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দরে পৌঁছান। বিমানবন্দ‌রে ওবায়দুল কা‌দের‌ অবতরণ কর‌লে তাকে বিমানবন্দ‌রে অভ্যর্থনা জানাই আওয়ামী লীগ।

কাদের বলেন, আমি বাঁচব কি-না এ নিয়ে সংশয় ছিল। সেই জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে পরম করুণাময় আল্লাহ তাআলার ইচ্ছায় এবং আমাদের প্রিয় নেত্রী- চরম সঙ্কটে মা তার সন্তানের জন্য যা করেন তিনি আমার জন্য তা-ই করেছেন, তার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশের ভাষা আমার জানা নেই। যিনি মমতাময়ী মা, সত্যিই তার কাছে আমার ঋণের বোঝা বেড়ে গেল।

তিনি বলেন, শেখ রেহানা, তিনি কোরআন শরীফ পাঠ করে আমার জন্য দোয়া করেছেন। তার প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা। যদিও সেই সময়ে আমার মধ্যে আমি ছিলাম না। শুনেছি, আপনজন এই সময় কাছে এসে ডাকলে মৃত্যুপথযাত্রী সাড়া দেয়। শেখ হাসিনা আমাকে নাম ধরে ডেকে ছিলেন, তখন আমি সাড়া দিয়েছিলাম- এটা পরে আমাকে বলেছে।

এ সময় ওবায়দুল কাদের প্রধানমন্ত্রীসহ দেশবাসীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, মা তার সন্তানের জন্য যা করে আমাদের প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা আমার জন্য তা করেছেন। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমার জন্য নেতাকর্মীদের দোয়া আর ভালোবাসা দেখে আমি মুগ্ধ। আমি চির কৃতজ্ঞ।

প্রসঙ্গত, গত ৩ মার্চ সকালে বুকে প্রচণ্ড ব্যথা নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) ভর্তি হন ওবায়দুল কাদের। সেখানে এনজিওগ্রাম করার পর তার করোনারি ধমনিতে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে। সেদিন তাকে দেখতে হাসপাতালে ছুটে গিয়েছিলেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরে উপমহাদেশের বিখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ দেবী শেঠির পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য ৪ মার্চ তাকে সিঙ্গাপুর নেয়া হয়েছিল। ওই রাতেই মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ডা. ফিলিপ কোহ’র নেতৃত্বে ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসায় একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়।

পরে গত ২০ মার্চ ওই হাসপাতালে তার বাইপাস সার্জারি করেন মেডিকেল বোর্ডের সিনিয়র সদস্য কার্ডিওথোরাসিক সার্জন ডা. সিবাস্টিন কুমার সামি। শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে গত ২৬ মার্চ ওবায়দুল কাদেরকে হাসপাতালের আইসিইউ থেকে কেবিনে নেয়া হয়।

সিঙ্গাপুরে ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে ছিলেন তার সহধর্মিণী ইসরাতুন্নেসা কাদের, এপিএস মহিদুল হক, সেতু বিভাগের তথ্য কর্মকর্তা শেখ ওয়ালিদ ফাইয়াজ, ব্যক্তিগত কর্মকর্তা সুখেন চাকমা, ব্যক্তিগত ফটোগ্রাফার মনসুরুল আলমসহ ঘনিষ্ঠ কয়েকজন।

ট্যাগ :

আরো সংবাদ



আর্কাইভ
July 2020
M T W T F S S
« Jun    
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930  
আলোচিত খবর

error: কি ব্যাপার মামা !!